বিয়ের এক বছর পরেও কোন সন্তান নেই , গৃহবধূকে ব্যাপক নির্যাতন শ্বশুর বাড়িতে। - Raiganj Online The True News Portal

Raiganj Online  The True News Portal

সত্য খবর সবার আগে

Breaking

Home Top Ad

Post Top Ad

Tuesday, March 5, 2019

বিয়ের এক বছর পরেও কোন সন্তান নেই , গৃহবধূকে ব্যাপক নির্যাতন শ্বশুর বাড়িতে।


SottayaNews:- বিয়ের এক বছর পরেও কোন সন্তান ধারণ করতে না পারায় গৃহবধূকে ব্যাপক নির্যাতন চালানোর অভিযোগ উঠলো শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে। আর এই নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে বাবার বাড়িতে এসে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মঘাতী হলেন ওই গৃহবধূ। 
মেয়ের মা

শুক্রবার রাতে শোবার ঘর থেকেই ওই গৃহবধূর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করে পুলিশ।  ঘটনাটি ঘটেছে কালিয়াচক থানার নয়াগ্রাম এলাকায়।  এই ঘটনায় মেয়ের পরিবারের পক্ষ থেকে জামাই মাবুদ শেখ,  ননদ সামিমা খাতুন সহ চার জনের বিরুদ্ধে কালিয়াচক থানার পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকে পলাতক অভিযুক্তরা।পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে,  মৃত গৃহবধূর নাম আজিজা সুলতানা (১৯)। 


তার বাবার বাড়ি কালিয়াচকের নয়াগ্রাম এলাকায় । এক বছর আগে কালিয়াচকের জোতকরম  গ্রামের বাসিন্দা মাবুদের সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল আজিজা সুলতানার।  বিয়ের এক বছর পর ওই গৃহবধূ কোন সন্তান ধারণ করতে না পারায় তার উপর ব্যাপক অত্যাচার চালাচ্ছিল শ্বশুরবাড়ির লোকেরা বলে অভিযোগ। শুক্রবার দুপুরে শ্বশুর বাড়ির নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে বাবার বাড়ি পালিয়ে আসেন ওই গৃহবধূ। এরপরই গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি। 

মৃত গৃহবধূর দাদা ইব্রাহিম শেখ পুলিশকে জানিয়েছেন,  বোনকে ওরা সন্তান না হওয়ার কারণে মারধর করছিলো।  ব্যাপক অত্যাচার চালাত । এর আগেও বোন পালিয়ে এসেছিল।  তারপরে গ্রাম্য সালিশিতেই সমস্যার সমাধান করে বোনকে তার স্বামীর ঘরে পাঠানো হয় । শুক্রবার বিকালে বোনকে ওরা মারধর দিয়ে আমাদের বাড়িতে নিয়ে আসে।  সেই সময় আমরা নামাজ পড়তে গিয়েছিলাম । রাতে বাড়ি ফিরে দেখি বোন শোবার ঘরে ফাঁস লাগানো অবস্থায় ঝুলছে ।


আমাদের ধারণা শশুর বাড়ির লোকেদের অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে বোন আত্মঘাতী হয়েছে। পুলিশকে অভিযোগ জানিয়েছে। অভিযুক্তদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করা হয়েছে। কালিয়াচক থানার পুলিশ জানিয়েছে,  ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত পলাতক।  তাদের খোঁজ চালানো হচ্ছে।  মৃত গৃহবধূর দেহ উদ্ধার করার পর ময়নাতদন্তের জন্য মালদা মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

No comments:

Post a Comment

আপনার মূল্যবান মতামত প্রকাশ করুন

Post Bottom Ad